সেমির পথ মসৃণের লড়াই: মুখোমুখি ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ

নিউজ ক্রিকেট ২৪ ডেস্ক »

এ বলে আমাদের আছে জোফরা আর্চার। আরেক দল বলে, আমাদের আছে ওশান থমাস। এ যদি বলে আমাদের আছে ওকস,প্লাঙ্কেট। আরেক দল বলে, আমাদের কোটরেল  আছে। আরো আছে হোল্ডার।

এক কথায়, ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের ম্যাচের গল্পের বিন্দুটা দাঁড়িয়েথাকতে পারতো  স্থির এক জায়গায়। দুই দলের পেইসারদের লড়াই। অথচ এই দুই দলেই এতো দারুন সব আক্রমণাত্মক ব্যাটসম্যান আছে, নজর সরানোর উপায় নেই।  এমন জম্পেশ দুই দলের লড়াই শুক্রবার বিকেল সাড়ে তিনটায়।

অথচ পরিসংখ্যানের দিক থেকে বিচার করলে, দুই দলের পার্থক্যটা বিশাল। গত ১৩ দেখায় ১১বারই ক্যারিবীয়দের হারিয়েছে ইংলিশরা। আরো গুরুত্বপূর্ণ তথ্য, ১৯৭৯ সালে প্রথমবার ক্লাইভ লয়েডের ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে দেখায় ইংলিশ সিংহরা বশ মেনেছিল। কিন্তু ওই একবারই।

এরপর বিশ্বকাপে কখনোই ইংল্যান্ডকে হারাতে পারেনি ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এ ম্যাচের ছয় দেখাতে ইংলিশদের জয় পাঁচটিতে। সে হিসেবে ৪০ বছর আগে শেষবার বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডকে হারিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ!

এই তো ২০১৭ সালে যে সাউদাম্পটনে হ্যাম্পশায়ার  মাঠে শেষবার ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে দেখায়  জয় ইংলিশদের।

পরিসংখ্যানের বিচারে ইংল্যান্ড এগিয়ে। দলগত পারফরর্ম্যান্সেও তাই। সেদিক থেকে ক্যারিবীয়দের সাফল্য যতটা দলগত তারচেয়ে বেশি ব্যক্তি সাফল্যে ভাস্বর। যদিও এই বিশ্বকাপে তাদের চার পেসারের কোরাস গাওয়ার ভঙ্গীতে পাকিস্তানের বিপক্ষে একের পর এক শর্ট বলের গল্পটা, দল হিসেবে ক্যারিবীয়দের খেলার ঐক্যতান শুনিয়ে গেছে।

পাকিস্তানের কাছে হারের পর,বাংলাদেশের বিপক্ষে জিতে আবারো জয়ের রাস্তায় ইংল্যান্ডের গাড়ি। অন্যদিকে, ক্যারিবীয়দের শেষ ম্যাচ ভেসে গেছে বৃষ্টিতে। পয়েন্ট টেবিলে ওলট-পালট করে দিতে পারে এমন এক ম্যাচের আগে আবহাওয়ার এখনো বিরুদ্ধতা করার আভাস মেলেনি। টস খুব হয়ত বড় ব্যাপার হবে না। তবে আগে বোলিং করা দলের পেইসাররা প্রথম দিকে কিছুটা সুবিধা পাবেন সেটা জানাচ্ছে মাঠ সংশ্লিষ্টরা।

বৃষ্টি হোক না হোক, দর্শকরা তাকিয়ে থাকবে ক্রিস গেইল,বাটলারদের ব্যাটের ঝড়ের দিকে। সমস্যা হল, বাটলার পুরো সুস্থ নন।   এ ম্যাচ যদি ওয়েস্ট ইন্ডিজ জিতে যায়, তবে বেশ বেকায়দায় পড়বে হট ফেভারিট হবে আসর শুরু করা ইংল্যান্ড। সে তুলনায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ এ আসর খেলতে এসেছে পাদপ্রদীপের একটু বাইরে থেকে। ক্রিকেটকে উপভোগ করছে তারা।

সবচেয়ে বড় কথা, এ ম্যাচে পরাজিত দলের জন্য সেমির সমীকরণটা কঠিন হয়ে পড়বে। ইংল্যান্ড বা ওয়েস্ট ইন্ডিজ নিশ্চয় দুর্গম, অনিশ্চয়তার সেই রাস্তায় হাঁটতে চাইবে না!

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »