সাদা পোষাকে বাংলাদেশের ১৯!

নিউজ ক্রিকেট ২৪ ডেস্ক »

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
[contact-form-7 404 "Not Found"]

সাদা পোষাকে বাংলাদেশের ১৯!

টেস্ট ক্রিকেট ক্যারিয়ারে ১৯ বছর পার করলো বাংলাদেশ। এই পথচলার শুরুটা হয়েছিল ২০০০ সালের ১০ নভেম্বর। যাদের মাধ্যমে এই পথচলার শুরু তারা কেউ আজ ক্রিকেট খেলছেন নাহ। যদিওবা কোন না কোনভাবে যুক্ত আছেন ক্রিকেটের সাথে। ১৯৯৭ সালে আইসিসি ট্রফি জেতার মাধ্যমে বাংলাদেশ ১৯৯৯ সালে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ পায় এবং আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সংস্থার নিয়মিত সদস্য পদ লাভ করে।

প্রথমবার বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করেই চমক সৃষ্টি করে বাংলাদেশ। অসাধারণ নৈপুণ্যে ১৯৯২ বিশ্বকাপজয়ী পাকিস্তানকে ৬২ রানে পরাজিত করে টাইগাররা। স্কটল্যান্ড এবং পাকিস্তানকে হারানোর পরও বাংলাদেশ বিশ্বকাপের পরবর্তী রাউন্ডে যেতে ব্যর্থ হয়। কিন্তু এ-ই পথটুকুই সাহায্য করে পরবর্তী বছরে টেস্ট স্ট্যাটাস প্রাপ্তিতে। এরই ভিত্তিতে ২০০০ সালের ২৬ জুন বাংলাদেশ ক্রিকেট টেস্টে দশম সদস্য হিসেবে নিজের স্থান করে নেয়। আর্ন্তজাতিক ক্রিকেট দল হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ার মাত্র ন’ মাসের মাথায় টেষ্ট স্ট্যাটাস প্রাপ্তির এই কৃতিত্ব সত্যিকার অর্থেই বিরল।

তারপর ২০০০ সালের ১০ নভেম্বরের সেই অপেক্ষার অবসান ঘটল। ঢাকায় প্রথম ঐতিহাসিক অভিষেক টেস্ট আয়োজন করা হল ভারতের বিপক্ষে। ঢাকার বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে ভারতের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট খেলতে নেমেছিল বাংলাদেশ৷ প্রথম অধিনায়ক ছিলেন নাঈমুর রহমান দুর্জয়৷ ওপাড় বাংলার আরেক বাঙালি সৌরভ গাঙ্গুলির সঙ্গে প্রথম টেস্টে টস করতে নেমেছিলেন বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট অধিনায়ক নাঈমুর রহমান দুর্জয়। বিশ্ব দেখেছিলো একই দিনে দুই বাঙালীর অধিনায়কত্ব।

টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তিনি। আগে ব্যাট করতে নেমেই বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দেয় বাংলার বাঘেরা। অভিষেক ইনিংসেই করেছিল ৪০০ রান। টেস্ট অভিষেকে দলীয় সর্বোচ্চ রানের স্কোরটা জিম্বাবুয়ের (৪৫৬) রান। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংগ্রহের তালিকায় আছে বাংলাদেশের (৪০০)। প্রথম রানটি এসেছিল শাহরিয়ার হোসেনের ব্যাট থেকে। প্রথম বাউন্ডারি ও আসে শাহরিয়ার হোসেনের ব্যাট থেকেই। আকরাম খানের ব্যাট থেকে আসে প্রথম ছক্কাটি। প্রথম অর্ধশতকের মালিক হাবিবুল বাশার সুমন। অভিষেক টেস্টে ১১২ বলে ১০টি বাউন্ডারিতে তিনি করেছিলেন ৭১ রান।

প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি এসেছিলো আমিনুল ইসলাম বুলবুলের ব্যাট থেকে। ৫৩৫ মিনিটের দীর্ঘ ইনিংসে ১৭টি চারসহ তিনি ১৪৫ রান করেছিলেন। ৩৮০টি বল মোকাবেলা করে তিনি ইনিংসটি সাজান। তিনি ছিলেন ক্রিকেট ইতিহাসের তৃতীয় ক্রিকেটার, যিনি দেশের হয়ে অভিষেক টেস্টে সেঞ্চুরি করেন।

টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের পক্ষে প্রথম বলটি করেছিলেন হাসিবুল হোসেন। অভিষেক টেস্টে তিনি প্রথম বলটি করেছিলেন ভারতের উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান শিবশঙ্কর দাশকে। অভিষেক টেস্টে অধিনায়ক নাঈমুর রহমান তার অফ স্পিনে ৪৪.৩ ওভার থেকে ১৩২ রান খরচায় নিয়েছিলেন ৬ উইকেট। ভারতের শিবশঙ্কর দাশকে বোল্ড করেছিলেন নাঈমুর রহমান দুর্জয়।

টেস্টে বাংলাদেশের প্রথম দল: শাহরিয়ার হোসেন, মেহরাব হোসেন, হাবিবুল বাশার, আমিনুল ইসলাম, আকরাম খান, নাঈমুর রহমান (অধিনায়ক), আল-শাহরিয়ার, খালেদ মাসুদ (উইকেটরক্ষক), মোহাম্মদ রফিক, হাসিবুল হোসেন, বিকাশ রঞ্জন দাশ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »