ভারত-পাকিস্তান সফরে টেস্টে বাজে পারফরম্যান্সের কারন জানালেন ডমিঙ্গো

সাজিদা জেসমিন »

বাংলাদেশের প্রধান কোচ হিসেবে সময়টা ভালো কাটছেনা রাসেল ডোমিঙ্গোর। ভারত সফর কঠিনভাবে কেটেছে, এরপর পাকিস্তান সফরেও ভালো সময় কাটেনি। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে অনেকটাই। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপের ৩ ম্যাচ হারার পর এখন মূল লক্ষ্য দুর্দান্ত পেস আক্রমণভাগ গঠন করা এবং তরুণদের দক্ষ করে গড়ে তোলার দিকে নজর দেওয়া।

ক্রিকবাজের সাথে সাক্ষাৎকারে রাসেল বাংলাদেশ দল নিয়ে পরিকল্পনা, প্রস্তুতি, পেস ইউনিট এবং আরো অনেক বিষয় নিয়ে কথা বলেন। আপনি কি মনে করেন নাহ আপনাকে প্রাথমিক পর্যবেক্ষণ করার সময় শেষ হয়েছে এবং সমর্থকেরা আপনার কাছ থেকে খুব দ্রুত ফলাফল আশা করে? – এই প্রশ্নের জবাবে ডোমিঙ্গো বলেন-
‘হ্যাঁ অবশ্যই! আমি এখানে ৫মাস যাবৎ আছি এবং আমি এতোদিনে ভালোভাবে বুঝতে পেরেছি কারা টেস্টের জন্য উপযোগী, এবং কাদের কোথায় পরিবর্তন প্রয়োজন, আর তাদের জন্য কি করতে হবে। তাই আমি সামনে এগিয়ে যেতে খুবই উৎসুক। ভারত এআং পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্টে সময়সূচির কারণে আমাদের প্রস্তুতি খারাপ ছিলো। একটি দলের প্রয়োজনীয়তা হিসেবে আমাদের পর্যাপ্ত সময় ছিলোনা। তাই পরবর্তী টেস্ট ম্যাচের পূর্বে আমরা ৪/৫দিন সময় পাচ্ছি। যার ভিতরে আমরা আমাদের পরিকল্পনামাফিক এগুতে পারবো এবং কিছু জায়গায় পরিবর্তন করা সম্ভব হবে।’

বিগত টেস্ট ম্যাচগুলোতে আমাদের তেমন একটা পেসার খেলেনি, তবে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আমরা স্কোয়াডে ৫জন পেসার রয়েছে। এ-র পিছনে উপযুক্ত কারণ জানতে চাইলে ডোমিঙ্গো মন্তব্য করেন নতুন কোচ যাতে পেসারদের সম্পর্কে ধারণা পায় এবং সে অনুযায়ী কাজ শুরু করতে পারে তাই এমনটা করা হয়েছে।

ডোমিঙ্গো বলেন- ‘দেখুন, আমরা ৪জন পেসার খেলাবো নাহ। এমনটা কখনোই হবেনা। কিন্তু যেটি মূলত গুরুত্বপূর্ণ, তা হলো আমরা তাদের সাথে ৪/৫দিন কাজ করতে পারবো। যার ফলে আমাদের নবনিযুক্ত কোচ ওটিস গিবসন আমাদের পেসারদের সম্পর্কে ধারণা পাবেন, তাকে কিভাবে এগুতে হবে এবং কার কোথায় পরিবর্তন করতে হবে। আমরা ঢাকা টেস্টে ৪জন পেসার খেলাবো নাহ, আমরা মনে করি টেস্ট ক্রিকেটের জন্য আমাদের সেরা ৬জন পেসার রয়েছে।’

সমর্থকদের মতামত বাংলাদেশ টেস্ট ম্যাচ জিতেছে অনেকটা সময় পেরিয়ে গেছে। এ ব্যাপারে সামনে কিভাবে এগুতে চান এ প্রশ্নের জবাবে ডোমিঙ্গো বলেন- ‘অবশ্যই আমরা ম্যাচ জেতা শুরু করেছি। বলতে গেলে আমরা ভারত এবং পাকিস্তানের বিপক্ষে খারাপ প্রস্তুতি নিয়ে দু’টি কঠিন টেস্ট সিরিজ খেলেছি। আমরা মনে করি ভারত-পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের থেকে সামনের টেস্টগুলোতে আমরা খুব ভালো প্রস্তুতি নিয়ে খেলবো। এবং যখন কোচ অনেকটা আত্নবিশ্বাসী তখন প্রস্তুতি অবশ্যই ভালো হবে। তবে ফলাফল সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ এবং আমরা ম্যাচ জিততে চাই।’

জিম্বাবুয়ের সাথে বাংলাদেশের একমাত্র টেস্টটি আগামী ২২শে ফেব্রুয়ারি শুরু হতে যাচ্ছে। এ-র আগে কোচকে দলের নিয়ে অনেকটা আশাবাদী মনে হলো। এখন ফলাফলই বলে দিবে দলে কতটুকু পরিবর্তন এসেছে

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »