fbpx

বাংলাদেশের কোচ হবেন কে?

নিউজ ক্রিকেট ২৪ ডেস্ক »

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই মূহুর্তে বাংলাদেশের ক্রিকেট অঙ্গনে সবচেয়ে বড় প্রশ্ন হচ্ছে কে হবে বাংলাদেশ দলের পরবর্তী হেড কোচ? এই কোচ সংক্রান্ত বিষয়ে বিসিবির বড় কর্তারাও গোপনীয়তা বজায় রাখতে চেষ্টা করছে। তারা যেন মুখে তালা লাগিয়ে রেখেছে। তবে একটা বিষয়ে অনেক কথা রটে থাকে তেমনি কোচ নিয়োগ নিয়েও অনেক কথা রটেছে। এই যেমন একবার রাসেল ডমিঙ্গো আবার মাইক হেসন এমনকি আসে মিকি আর্থার কিংবা জয়াবর্ধনের নাম আবার একটা পর্যায়ে শোনা গিয়েছিল হাতুড়েসিংহের নাম ।কিন্তু কে হবেন হেড কোচ? সব জল্পনা কল্পনা ঘটিয়ে কি হাই প্রোফাইল মাইক হেসন কি হবেন? নাকি ডমিঙ্গো? চলুন একটু দেখে নেয়া যাক কে কোচ হবার দৌড়ে এগিয়ে রয়েছে।

বাংলাদেশ দল বিশ্বকাপে স্টিভ রোডসের ব্যর্থতা এবং আরো অন্যান্য আনুষঙ্গিক বিষয়ে মতপার্থক্য না থাকায় সমঝোতার ভিত্তিতে চুক্তি বাতিল করেছে বিসিবি। এরপর শুরু হয় নতুন কোচ খোঁজার যাত্রা। এই নতুন কোচ খোঁজার প্রক্রিয়ায় প্রথমে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিলেও কাকে বাংলাদেশ তাদের শর্টলিস্টে রেখেছে তা প্রকাশ করেনি। এরপর তা প্রকাশ পায়। এমনকি এদের মধ্যে রাসেল ডমিঙ্গো সাক্ষাৎকার দিতে আসেন। আবার ২০১২-২০১৮ সাল পর্যন্ত নিউজিল্যান্ডের হেড কোচের দায়িত্বে থাকা মাইক হেসনকে নিয়ে আগ্রহ প্রকাশ করে বিসিবি। আবার এর মধ্যে গুঞ্জন ছিলো যে সাবেক কোচ চন্ডিকা হাতুরেসিংহেকে নিয়ে আসতে যাচ্ছে বিসিবি। তবে সে পথে আগায়নি বিসিবি। আরো দুইজন কোচ এর নাম এসেছিলো জিম্বাবুয়ের গ্র্যান্ট ফ্লাওয়ার ও ইংল্যান্ডের পর ফার্ব্রেস। এদেরকে নিয়েই আমাদের আজকের আলোচনা।

 

প্রথমে রাসেল ডমিঙ্গোর কথায় আসা যাক। রাসেল ডমিঙ্গো বাংলাদেশ দলের কোচ হবার জন্য সাক্ষাৎকার দিতে বাংলাদেশ এসেছিলেন এবং তিনি সাক্ষাৎকার দিয়েছিলেন। তার সাক্ষাৎকারে সন্তুষ্ট হয়েছিলেন বিসিবির বড় কর্তারা। তবে রাসেল ডমিঙ্গো বাংলাদেশ দলের হেড কোচ নয় বরং হাই প্রোফাইল দল , এ দল , কিংবা অনুর্ধ্ব-১৯ দলের কোচের পদের জন্য বেশি আগ্রহী। তাহলে রাসেল ডমিঙ্গো কি হেড কোচ হবেন না? সে প্রসঙ্গে পরে আসা যাক। তবে রাসেল ডমিঙ্গো যে বাংলাদেশ দলের হেড কোচের বিবেচনায় আছেন সেটা নিশ্চিত।

এবার মাইক হেসনের কথায় আসা যাক। মাইক বেসন একজন হাই প্রোফাইল কোচ। নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের হেড কোচের দায়িত্ব পালন করছেন ২০১২-২০১৮ সাল পর্যন্ত। এছাড়া আইপিএল এ কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব দলের কোচ এর ছিলেন। এই হাই প্রোফাইল কোচকে শুধু বাংলাদেশ নয় ভারত এবং পাকিস্তান নিতে আগ্রহী বলে শোনা যাচ্ছিলো। আর হেসন নিজেও ভারতের কোচ হবার জন্য বেশি আগ্রহী ছিলেন। যার জন্য সে বাংলাদেশে আসতে দেরি করছিলো। তবে এই মুহূর্তে ভারতীয় দলের কোচ হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন আবার সেই রবি শাস্ত্রী। তাহলে কি বিসিবি কি হেসনকেই নিয়োগ দিতে যাচ্ছে? তবে হেসনকে বিসিবি নিজে যেচে বেছে ঘটা করে আর বলবে না কারণটা অবশ্য পরিষ্কার সে বাংলাদেশে দলকে রেখে ভারতকে নিয়ে আগ্রহ দেখিয়ে বারবার ঘুরাচ্ছিলো। আর পাকিস্তানেও হয়তো মিসবাহ উল হককে কোচ করা হবে। তাহলে সব কূল কি হারাবেন হেসন? সেটা সময় বলে দিবে।

এবার আসি বাকিদের আলোচনায় থাকা নিয়ে। মূলত উপরের দুজন বাংলাদেশ দলের হেড কোচের পদ এর মূল আলোচনায়। বাকি সম্ভাব্যরা হলেন: চন্ডিকা হাতুরেসিংহে, গ্র্যান্ট ফ্লাওয়ার, পর ফার্ব্রেস, মিকি আর্থার। মূলত চন্ডিকা হাতুরেসিংহে আলোচনাতে থাকলেও আগের কার্যকলাপে কেউ চায়না সে আসুক। তাই তাকে বিবেচনা থেকে বাদ দেয়া যায়। তবে বিসিবির শর্টলিস্টে থাকা গ্র্যান্ট ফ্লাওয়ার ও ইংল্যান্ডের পল ফার্ব্রেসকে নিয়ে আর তেমন আলোচনা হয়নি। তবে শোনা গিয়েছে যে বাংলাদেশ দলের কোচ নির্বাচনে থাকা কর্তারা টেলিকনফারেন্সে কথা বলেছে কয়েকজনের সাথে। গুঞ্জন আছে এদের মধ্যে পাকিস্তান দলের সাবেক কোচ মিকি আর্থারের নাম।

যদিও এগিয়ে আছেন রাসেল ডমিঙ্গো বা মাইক হেসন তবে বিসিবি যেহেতু পুরো বিষয়টি গোপনীয়তা রাখছে তাই বলা যাচ্ছেনা নিশ্চিতভাবে যে কে হবেন হেড কোচ। তবে সামগ্রিক দিক দেখলে আপাতত রাসেল ডমিঙ্গো এগিয়ে রয়েছে। এখন কে হবেন হেড কোচ সেটি হয়তো রবিবারের মধ্যে জানা যাবে। এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »