ফিল্ডিং নিয়ে ‘ওয়ান টু ওয়ান’ কাজ করতে চান রাজিন সালেহ-

নিউজ ক্রিকেট ২৪ ডেস্ক »

আগামী দুই সিরিজের জন্য বাংলাদেশ জাতীয় দলের ফিল্ডিং কোচ হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক রাজিন সালেহকে। আসন্ন আফগানিস্তান সিরিজ ও দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে টাইগারদের ফিল্ডিং কোচ হয়ে কোচিং প্যানেলে দেখা যাবে তাকে।

রাজিন সালেহ, জাতীয় দলের হয়ে টেস্ট-ওয়ানডে উভয় ফরম্যাটে খেলেছেন দীর্ঘ সময়। লাল-সবুজের জার্সি গায়ে জাতীয় দলকে নেতৃত্বও দিয়েছেন। ক্রিকেট ছাড়ার পর, পুরোদমে একজন পেশাদার কোচ হয়েই আত্মপ্রকাশ করেন তিনি। কোচিং ক্যারিয়ারে পা রাখার পর থেকেই মনে স্বপ্ন বুনেছিলেন, জাতীয় দলকে এবার অন্য কোন ভূমিকায় সেবা দিতে। জাতীয় দলের সাথে কাজ করার সুযোগ হলে, জাতীয় দলকে সেবা দিতে অনেক আগেই থেকেই মুখিয়ে ছিলেন রাজিন। অবশেষে, জাতীয় দলের সাথে কাজ করার সেই স্বপ্নপূরণ হয়েছে রাজিনের।

জাতীয় দলের সাথে কাজ করার স্বপ্নপূরণের সেই অনুভূতি সমন্ধে জানতে চাইলে নিউজক্রিকেট টুয়েন্টিফোরকে

“রাজিন সালেহ” জানান: জাতীয় দলের হয়ে খেলা, জাতীয় দলের সাথে কাজ করা, এগুলো অনেক বড় গর্বের বিষয়। আমি আল্লাহর রহমতে জাতীয় দলের হয়ে খেলার সুযোগ পেয়েছি, দলকে নেতৃত্বও দিয়েছি একটা সময়।
এখন ক্রিকেট ছাড়ার পর থেকে কোচিং পেশায় এসেছি, শুধুমাত্র এই ক্রিকেটের সাথে যুক্ত থাকতে।
কোচিং পেশায় যুক্ত হওয়ার পর থেকেই স্বপ্ন ছিল এবার অন্য ভূমিকায় জাতীয় দলের সঙ্গে কাজ করার। অবশেষে আমার সেই স্বপ্ন পূরন হতে যাচ্ছে।

জাতীয় দলের সাথে কাজ করার সেই স্বপ্ন পূরন হয়েছে মানে এই নয় যে, আমার কাজ শেষ। আমাকে আপাতত আগামী ২ সিরিজের জন্য নেওয়া হচ্ছে। মনে করতে পারেন, আমার জন্য দু’টো এসাইনমেন্ট এটি। আমি এই সিরিজে নিজের সবটুকু দিয়ে দলকে সেবা দিতে চাই, ফিল্ডিংয়ে ভাল করতে চাই। আমি যদি আমার এসাইনমেন্ট গুলো ঠিকঠাক তাদের প্রত্যাশা অনুযায়ী পূরন করতে পারি, তাহলে আগামীতে লম্বা সময়ের জন্য কাজ করার সুযোগ পাবো। আমি সেই সুযোগটা তৈরি করে নিতে চাই। আমি ধন্যবাদ দিতে চাই বিসিবিকে, তারা আমাকে কাজ করার সুযোগ দিয়েছে। আমি আমার কাজটা ঠিকঠাক ভাবে করে যেতে চাই, নিজের সামর্থ্য প্রমাণ করতে চাই। বাকীটা আল্লাহর ইচ্ছা।

দায়িত্ব নেয়ার পর কাজের ধরন ও ফিল্ডিং নিয়ে নিজের পরিকল্পনা সমন্ধে জানতে চাইলে রাজিন জানান:  দেখুন আমি মাত্র ২ সিরিজের জন্য দায়িত্ব পেয়েছি। এই স্বল্প সময়ে আহামরি কোন উন্নতি করিয়ে ফেলার মিথ্যা আশ্বাস আমি দিবো না। তবে দুই সিরিজের ভিতরকার এই সময়টা আমি নিজের সাধ্যানুযায়ী ফিল্ডিং নিয়ে কাজ করে যাবো। আমার প্রাথমিক পরিকল্পনা থাকবে ওয়ান টু ওয়ান কাজ করার। দেখুন আমি যখন একজন একজনকে নিয়ে আলাদা ভাবে কাজ করবো, তখন ওদের দুর্বলতা ও উন্নতির জায়গা গুলো সহজে বুঝতে পারবো ও বুঝাতে পারবো। আমি যতটুক সময় পাবো আমার সাধ্যের সবটুকু উজাড় করে দিবো প্লেয়ারদের জন্য। যেহেতু স্বল্প সময়ের জন্য আসছি, তাই ফিল্ডিং নিয়ে বিশাল কোন স্বপ্ন দেখাবো না। ফিল্ডিংয়ে আরো উন্নতির জন্য আমাকে সময় দিতে হবে, লম্বা সময় এদের নিয়ে কাজ করার সুযোগ হলে, আমি আমার প্রয়োজনীয় পরিকল্পনা সাজিয়ে সেই অনুযায়ী কাজ করতে পারবো। আর এতে করে এইটুক বলতে পারি এখনকার অবস্থা থেকে ভাল করার সর্বোচ্চ চেষ্টা থাকবে।

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী ১৯ ফেব্রুয়ারী করোনা টেস্টের পর আফগানিস্তান সিরিজের আগে দলের সাথে যোগ দিবেন তিনি।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »