ফাইনালে মোস্তাফিজ-সৌম্যরা

নিউজ ক্রিকেট ২৪ ডেস্ক »

 

বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগের (বিসিএল) ওয়ানডে সংস্করণ স্বাধীনতা কাপের ফাইনালে উঠেছে বিসিবি সাউথ জোন। গতকাল লিগ পর্বের শেষ ম্যাচে সৌম্য সরকারের ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোনকে ৫ উইকেটে হারিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করেছে মোস্তাফিজুর রহমানের সাউথ জোন। হেরেও প্রথম দুই ম্যাচ জেতায় পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থেকেই ফাইনালে ওঠে সেন্ট্রাল জোন। আরেক ম্যাচে ইসলামি ব্যাংক ইস্ট জোনের বিপক্ষে ৪ উইকেটে হেরে ফাইনালে যাওয়ার সুযোগ হাতছাড়া করেছে বিসিবি নর্থ জোন।

সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাটিং করতে নেমে দলীয় ৯ রানে সেন্ট্রাল জোন দুই ওপেনার মিজানুর রহমান ও সৌম্য সরকারে উইকেট হারায়। আব্দুল মজিদ ও তাইবুর রহমান তৃতীয় উইকেট জুটিতে ৫০ রানের জুটি গড়েন। তাইবুর ২৩ রান করে আউট হলে ভাঙ্গে এই জুটি। অধিনায়ক মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত চতুর্থ উইকেট জুটিতে মজিদকে নিয়ে আরও ৬৪ রান যোগ করেন। মজিদ ৪৬ ও সৈতক ৪৪ রান করে অল্প সময়ের ব্যবধানে আউট হন। পরের ব্যাটাররা অবশ্য কেউই রানের দেখা পাননি। আবু হায়দার রনি ঝড়ো গতির ফিফটির কল্যাণে সেন্ট্রাল জোনের স্কোর দুইশ ছাড়ায়। মোস্তাফিজের করা শেষ ওভারে শেষ বলে ছয় মেরে ২৭ বলে ফিফটি পূরণ করে ৫৪ রানে অপরাজিত থাকেন রনি। ৫০ ওভারে ৮ উইকেটে ২২০ রান করে সেন্ট্রাল জোন। মোস্তাফিজ ৪টি ও মেহেদি হাসান ৩টি উইকেট নেন।

২২১ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিং করতে নেমে উদ্বোধনী জুটিতে ৬০ রান যোগ করে পিনাক ঘোষ ও এনামুল হক বিজয়। ২৪ রান করে আউট হন বিজয়। ফিফটি তুলে নেন পিনাক। মাইশিকুর রহমান ৭ ও পিনাক ৫৪ রান করে আউট হলে ৯৬ রানে ৩ উইকেট হারায় সাউথ জোন। অধিনায়ক জাকির হাসান এবং তৌহিদ হৃদয় চতুর্থ উইকেট জুটিতে ৮০ রানের জুটি গড়ে দলের জয়ের কাজ সহজ করেন। জাকির ৪০ রান করে আউট হলেও হৃদয় ফিফটি তুলে নেন। ৪৮.৪ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ২২৫ রান করে সহজ জয় নিশ্চিত করে সাউথ জোন হৃদয় ৭৮ রানে অপরাজিত থাকেন। সেন্ট্রাল জোনের হাসান মুরাদ ২ উইকেট নেন।

সিলেট অ্যাকাডেমি মাঠে আরেক ম্যাচে ইস্ট জোনের বিপক্ষে টস হেরে ব্যাটিং করতে নেমে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মার্শাল আইয়্যুবের ফিফটিতে ৪৯.৫ ওভারে ২১৬ রানে অলআউট হয় নর্থ জোন। মাহমুদউল্লাহ ৬৬ ও মার্শাল ৫৪ রান করেন। ইস্ট জোনের নাঈম হাসান ৩টি ও তানভির ইসলাম ২টি উইকেট নেন। ২১৭ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিং করতে নেমে ইমরুল কায়েসের ফিফটিতে ৩৭.৫ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ২১৭ করে ইস্ট জোন। ইমরুল ৭১ রান করে আউট হন। নর্থ জোনের মাহমুদউল্লাহ ৩ উইকেট নেন।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »