দায়িত্ব পালনে নিজের প্রতি আত্নবিশ্বাসী মুমিনুল

নিউজ ক্রিকেট ২৪ ডেস্ক »

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শুরুটা ২০১২ সালের ৩০শে নভেম্বর। ওয়েস্ট ইন্ডিজ এর বিপরীতে এক দিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচে। সেই থেকে নিজের ঝুলিতে পুড়েছেন অনেক কিছুই। বর্তমান সময়ে বাংলাদেশের হয়ে লঙ্গার ভার্সনে সেরা ফরম্যাটে থাকা একজন বলা চলে। টেস্টে বেশকিছু রেকর্ড ও আছে তার। সম্প্রতি ভারত টেস্ট সিরিজের জন্য অধিনায়কত্বের ভার পেয়েছেন সময়ের সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের পরিবর্তে।

ভাগ্যের কি খেলা দেখুন? মুমিনুলের আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পা রাখা ও কিন্তু সাকিবের অনুপস্থিতিতে। আর এবারো হলো তাই। মাস টাও নভেম্বর। এটাকে বাকিরা কি ভাবছেন জানিনা তবে আমি অদৃষ্টের লিখন বলেই মেনে নিচ্ছি। প্রতিবার যোগসূত্রে সাকিব জড়িয়ে যায়। যাই হোক প্রথমবার অধিনায়কত্ব যেখানে রোমাঞ্চকর হওয়ার কথা। মুমিনুল সেখানে এটাকে গুরুত্ব সহকারে দায়িত্ব হিসেবেই দেখছেন। টেস্ট অধিনায়কত্ব নিয়ে ভারতীয় দৈনিক এই সময়কে বলেন —‘দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করাটাই খুব সম্মানের। ক্যাপ্টেন হওয়া নিশ্চিত ভাবেই আরও বড় সম্মান।’

আর অধিনায়কত্ব নিয়ে তিনি কোন উচ্ছ্বাস প্রকাশ না করে নিজের গুরুত্বের কথাই তুলে ধরলেন গণমাধ্যমে। তিনি কি ভাবছেন নিজে কতটুকু আশান্বিত এ-ই ব্যাপারে বলেন – ‘কিন্তু ক্যাপ্টেন হয়ে আলাদা করে দারুণ কিছু এক্সাইটমেন্ট হচ্ছে বললে বাড়িয়ে বলা হবে। আসলে দেশের জন্য খেলাটা কর্তব্য বলে মনে করি। নিজের কাজটা ঠিক করে করাই লক্ষ্য। তার বেশি কিছু নয়।’

সাকিবের পরিবর্তে যাচ্ছেন যেহেতু সেই হিসেবে স্বভাবতই কিসের বিচারে, আর সাকিবের জায়গা পরিপূর্ণতা পাবে কি না এসব নিয়ে তীর মুমিনুলের দিকে থাকতেই পারে। এ ব্যাপারে মুমিনুল বলেন –
‘আমি জানি, ভারতে গেলে এটা নিয়ে প্রশ্ন আসবে এখানেও আসবে। দেখুন, এগুলো থাকবেই এসব নিয়েই চলতে হবে, চলতে হয়। অবশ্যই এটা চ্যালেঞ্জিং পরিস্থিতি, আমাদের চ্যালেঞ্জটা নিয়েই খেলতে হবে, আমরা তৈরি।’

টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের পাশাপাশি ইডেন টেস্ট দিয়ে প্রথমবার গোলাপি বল ও দিবা-রাত্রির টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ। সেখানে মুমিনুলের নেতৃত্বে খেলবে দল। অধিনায়ক হিসেবে তার মন্তব্য জানতে চাইলে বলেন –‘ভারতও তো প্রথম খেলছে। আমার মনে হয় না, দিন-রাতের গোলাপি বলে খুব একটা সমস্যা হবে। আমার মনে হয়, মানসিকতা ঠিক রাখাটাই আসল। যদি মানসিকতা ঠিক থাকে, চার-পাঁচ দিন অনুশীলন করলে কোনো সমস্যা হবে বলে মনে হয় না।’

ভিরাট কোহলি স্বভাবতই আক্রমণাত্মক একজন অধিনায়ক। মুমিনুল সে হিসেবে উল্টো প্রকৃতির। তার সাথে প্রথমবার অধিনায়ক হিসেবে টস, মাঠের ক্রিকেটে পাল্লা দেওয়া কঠিন হবে কিনা জানতে চাইলে বলেন-
‘আমি চাইলেও ভিরাটের মতো আক্রমণাত্মক হতে পারব না, আর ও চাইলেও আমার মতো হবেনা। আসলে দুজনের স্বভাবটাই আলাদা। শুধু ভিরাটের কথা বলছেন কেন? ধোনির কথাও বলুন। তিনি তো খুবই চুপচাপ। তারপরও তো কত সফল।’

বুঝাই যায় আমাদের লিটল মাস্টার মুমিনুল অনেকটাই প্রস্তুত মানসিক ভাবে। নিজের দায়িত্ব পূরণে শতভাগ প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবেন। ভালো কিছু হোক সেই প্রত্যাশা রইলো। দেশের সর্বস্তরের সমর্থকদের পক্ষ থেকে শুভ কামনা রইলো।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »