দাপুটে জয়ে সিরিজ পাকিস্তানের

নিউজ ক্রিকেট ২৪ ডেস্ক »

রটারডামে বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় ওয়ানডেতে সফরকারীদের জয় ৭ উইকেটে। টানা দুই জয়ে তিন ম্যাচের সিরিজটি জিতে নিল বাবর আজমের দল। সঙ্গে আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ সুপার লিগে পেল আরও ১০ পয়েন্ট। আফগানিস্তানকে পেছনে ফেলে উঠে এলো তিনে।

আগের ম্যাচে পাকিস্তানের ৩১৪ রান তাড়ায় ২৯৮ রান করেছিল নেদারল্যান্ডস। কিন্তু এই ম‍্যাচে মুখ থুবড়ে পড়ল তাদের ব্যাটিং। গুটিয়ে গেল তারা স্রেফ ১৮৬ রানে।

প্রতিপক্ষকে অল্পতে থামিয়ে দেওয়ার পথে বড় অবদান রাখেন রউফ ও নওয়াজ। দুইজনেই নেন তিনটি করে উইকেট। ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতেন বাঁহাতি স্পিন অলরাউন্ডার নওয়াজ। নাসিম শাহর প্রাপ্তি দুই উইকেট।

নেদারল্যান্ডদের এই রান বাবর আজম, মোহাম্মদ রিজওয়ান ও সালমানের দারুণ ব্যাটিংয়ে ৯৮ বল বাকি থাকতেই পেরিয়ে যায় পাকিস্তান। টানা দ্বিতীয় ফিফটি করা বাবর আউট হন ৭ চারে ৫৭ রানে। রিজওয়ান অপরাজিত থাকেন ১ ছক্কা ও ৬ চারে ৬৯ করে। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের প্রথম ফিফটি করা সালমান খেলেন ২ ছক্কা ও ৫ চারে ৩৫ বলে ৫০ রানের ঝড়ো ইনিংস।

টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা নেদারল্যান্ডসের শুরুটা হয় দুঃস্বপ্নের মতো। ৮ রানেই টপ অর্ডার তিন ব্যাটসম্যানকে হারায় তারা। নাসিমের বলে কিপারের গ্লাভসে ধরা পড়েন বিক্রমজিত সিং। এই পেসার পরে বোল্ড করে দেন ওয়েসলি বারেসিকে। মাঝে ম্যাক্স ও’ডাউডকে ফেরান রউফ।

বিপদে পড়া দলের হাল ধরেন বাস ডে লেডে ও টম কুপার। দুইজনে গড়েন ১০৯ রানের জুটি। তাদের ব্যাটে বড় সংগ্রহের ভিত পেয়ে যায় স্বাগতিকরা।

দ্রুত রান তুলে ৫০ বলে ফিফটি করেন কুপার। আগের ম্যাচেও তিনি খেলেছিলেন পঞ্চাশ ছাড়ানো ইনিংস। ডে লেডের পঞ্চাশ আসে ৭৭ বলে। তাদের জুটি শতরান স্পর্শ করে ১১৯ বলে।

২ ছক্কা ও ৭ চারে ৬৬ রান করা কুপারের ফিরতি ক্যাচ নিয়ে জমে যাওয়া জুটি ভাঙেন নওয়াজ। এরপর বালির বাঁধের মতো ভেঙে পড়ে ডাচদের ব্যাটিং।

এক প্রান্ত দাঁড়িয়ে থেকে সতীর্থদের আসা-যাওয়া দেখেন ডে লেডে। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে তিনি আউট হন রউফের বলে। ৩ ছক্কা ও ২ চারে খেলেন ৮৯ রানের ইনিংস।

নেদারল্যান্ডসের ইনিংসে দুই অঙ্কে যেতে পারেন কেবল তিন জন। শেষ ৭ উইকেট হারায় তারা ৬৯ রানে।

রান তাড়ায় শুরুতে ধাক্কা খায় পাকিস্তান। আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান ফখর জামানকে ফিরতি ক্যাচ নিয়ে বিদায় করেন কিংমা। ইমাম উল হকও এই পেসারের শিকার।

১১ রানে দুই ওপেনারকে হারানো পাকিস্তানকে পথে ফেরান বাবর। মোহাম্মদ রিজওয়ানের সঙ্গে গড়েন ৮৮ রানের জুটি। যেখানে অগ্রণী ছিলেন বাবর। পাকিস্তান অধিনায়কের বিদায়ে ভাঙে তাদের প্রতিরোধ।

সালমানকে নিয়ে বাকি কাজ সারেন রিজওয়ান। দুজনেই দ্রুত রান বাড়িয়ে দলকে পৌঁছে দেন জয়ের ঠিকানায়। ৬৮ বলে তাদের অবিচ্ছিন্ন জুটি ৯২ রানের।

সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে আগামী রোববার মাঠের লড়াইয়ে নামবে দল দুটি।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »