জানা গেল আফিফের এমন ব্যাটিংয়ের রহস্য

https://scontent.fdac27-1.fna.fbcdn.net/v/t1.0-0/p370x247/69266799_2732683093409813_4383768751321907200_n.jpg?_nc_cat=108&_nc_eui2=AeFLxhpH-COm8Z5TbXlXvNtt6uQWzyg9y0gJ9xtgUpYxbgtFyfQgV0u7Ok_W0FW05phmSTLdlxxqBrxmFyFN9AG436tQk7_IY4FVSo7BwbUxBw&_nc_oc=AQm-m00UhQR1hV_HPBXlztuLmf7-DH6XMozfZuKYOtMgbuMPGoUpk7eU5T80NfsOytk&_nc_ht=scontent.fdac27-1.fna&oh=b8dfa6a6bc076e0dd73927a994344b80&oe=5DFA1E9D »

বাংলাদেশ বনাম জিম্বাবুয়ে ম্যাচের নায়ক তরুণ আফিফ হোসেন ধ্রুব। জিম্বাবুয়ের ছুঁড়ে দেয়া ১৪৫ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে টপ অর্ডারের সব ব্যাটসম্যান যখন সাজঘরে তখন হাল ধরেন এই ১৯ বছর বয়সী আফিফ।

শুরুতে ব্যাট করতে নেমে জিম্বাবুয়ে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়লেও সেখান থেকে দলকে টেনে তোলেন রায়ান বার্ল। ঠিক একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটে বাংলাদেশের ইনিংসেও। ব্যাট হাতে যখন সাকিব, মুশফিক, লিটন, সৌম্যরা একে একে যোগ দেন ব্যর্থতার তালিকায় তখন ব্যাট হাতে ত্রাতা হয়ে আসেন আফিফ। ২৬ বল মোকাবেলা করে যখন ৫২ রান আফিফের নামের পাশে তখন প্যাভিলিয়নে ফিরেন তিনি। তখন অবশ্য বাংলাদেশ দল জয়ের নিকটে। মোসাদ্দেক হোসেনের সাথে জুটি বেধে দলকে এই জয় এনে দেয়ার পর ম্যাচ সেরার পুরস্কারটাও ওঠে তার হাতেই।

তরুণ এই আফিফের এমন ব্যাটিংয়ের রহস্য জানালেন তিনি নিজেই। আফিফের ভাষ্য, ‘ইতিবাচক ব্যাটিং করার চেষ্টা করেছি শুধু। এমন পরিস্থিতিতে খেলতে পেরে রোমাঞ্চিত ছিলাম আমি। কেননা দীর্ঘ সময় পর দলকে জেতানোর সুযোগ পেয়েছিলাম। বলকে সজোরে মারতে চেয়েছি, বলও ব্যাটে আসছিল। মোসাদ্দেকের সাথে ব্যাটিং করাটা উপভোগ করেছি। মাঠে আমাকে সে অনেক সমর্থন দিয়েছে।’

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »