ঘনিয়ে আসছে মহারথ, দোয়া চাইলেন তামিম

নিউজ ক্রিকেট ২৪ ডেস্ক »

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

দ্বিতীয় সন্তানের বাবা হতে যাচ্ছেন দেশের ক্রিকেটের বড় এক নাম তামিম ইকবাল খান। এই উল্লাস ছড়িয়ে পড়েছে খান পরিবার সহ পুরো দেশের ক্রিকেটে। তামিমের এই আনন্দঘন মূহুর্তে যেনো দেশবাসীরও আনন্দের কমতি নেই। আনন্দের কমতি থাকবেই বা কেনো? বাংলাদেশ ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে সফল এই ব্যাটসম্যানের আনন্দ জোয়ারে তো সকল ক্রিকেটপ্রেমীরাই ভেসে যায়, চোখ দিয়ে ঝড়ে এক সাগর আনন্দ অশ্রু।

তবে নিজের এমন আনন্দঘন মূহুর্তেও যেনো ভীষণ হতাশ তামিম ইকবাল। কারণটা সবারই জানা, প্রথমবারের মতো আয়োজিত ভারত সফরে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলতে যাওয়া দলের সঙ্গে ইচ্ছা থাকা স্বত্বেও যে যেতে পারছেন না তিনি। এই পীড়া যেনো তামিমকে পুড়ে পুড়ে খাচ্ছে।

ভারত সফরে না যাওয়াটাই তামিমের জন্য যৌক্তিক সিদ্ধান্ত। কেননা প্রত্যেকটা স্বামীরই দায়িত্ব এবং কর্তব্য স্ত্রীর এমন মূহুর্তে তার পাশে থাকা। এমন সময়ে যদি তামিম তার সন্তান-সম্ভবা স্ত্রীর পাশে না থাকেন, তাহলে যে ভারী অন্যায় হয়ে যাবে। এমনিতেই ব্যস্ততার কারণে নিজেদের পরিবারকে সময় দিতে পারেন না ক্রিকেটাররা। তবে এমন মূহুর্ত স্ত্রী এবং পরিবারের সাথে থাকা অত্যন্ত জরুরী।

পারিবারিক কারণে ভারত সফরে না যেতে পারে হতাশা প্রকাশ করেন এবং দেশবাসীর কাছে সন্তানের জন্য দোয়া চেয়েছেন তামিম। আজ (৩০ অক্টোবর) দুপুর ২ টা ২২ মিনিটে নিজের অফিসিয়াল ফেসবুক পেইজে একটি পোস্টের মাধ্যমে নিজের ভাবাবেগ প্রকাশ করে দোয়া চায় তামিম। পোস্টটির মাধ্যমে তামিম জানান, ‘আপনারা জানেন, পারিবারিক কারণে ভারত সফর থেকে আমি বিরতি নিয়েছি। এই সিরিজে খেলতে না পেরে আমি নিজেও ভীষণ হতাশ।
বাংলাদেশ প্রথমবার ভারতে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলতে যাচ্ছে। আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপেও আমাদের প্রথম ম্যাচ এই সফরে। এই সফর ও নতুন মৌসুমের জন্য আমি খুব ভালোভাবে প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। দেশের বাইরে গিয়ে আলাদা করে এক মাস ফিটনেস ট্রেনিং করেছি। দেশে ফিরে ব্যাটিং অনুশীলন করেছি। শারীরিক ও মানসিকভাবে দারুণ প্রস্তুতি নিয়েছি। কিন্তু তার পরও সফরে যেতে পারছি না, কারণ কখনও কখনও পরিবার ও আপনজনের পাশে ক্রিকেট গৌণ হয়ে ওঠে।
আমি ও আমার স্ত্রী আমাদের দ্বিতীয় সন্তানের অপেক্ষায় দিন গুনছি। আমার স্ত্রীর শারীরিক অবস্থার কারণে আমাদের ধারণার চেয়ে একটু বেশি সময় ওকে হাসপাতালে থাকতে হচ্ছে। আমার মনে হয়েছে, এই সময়টায় ওর পাশে আমার থাকা উচিত। এজন্যই ছুটি নিতে হয়েছে। এমনিতেই পরিবার থেকে অনেকটা সময় আমরা দূরে থাকি, তাদেরকে প্রাপ্য সময়টুকু দিতে পারি না। আমাদের পরিবারের সদস্যারা অনেক ত্যাগ স্বীকার করেন। অন্য অনেক সময় না পারলেও জীবনের এই সময়গুলোতে অন্তত পরিবার আমাকে পাশে চাইতেই পারে।
আমি আমার দলকে মিস করব, ক্রিকেট মাঠকে মিস করব। তবে জীবনের এই গুরুত্বপূর্ণ সময়ে স্ত্রী যেন আমাকে মিস না করে, সেটুকু নিশ্চিত করতে চেয়েছি। সবার কাছে আমাদের জন্য দোয়া চাইছি। ইনশাল্লাহ খুব দ্রুতই আবার আমাকে মাঠে দেখতে পাবেন।
কঠিন সময়ে পাশে থাকার জন্য ও সমর্থনের জন্য সবাইকে ধন্যবাদ।’

দেশসেরা এ ব্যাটসম্যানের সন্তান-সম্ভবা স্ত্রীর পাশে থাকা প্রত্যেকটা স্বামীর জন্য উদাহরণ হয়ে থাকবে। তামিমের এমন সিদ্ধান্তকে সমর্থন জানিয়ে সকল ভক্ত সমর্থকদের পক্ষ হতে রইলো হৃদয় নিংড়ানো ভালোবাসা আর সন্তান-সম্ভবা স্ত্রী ও সন্তানের জন্য রইলো দোয়া ও হাজারো শুভকামনা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »