ক্রিকেটে ফিরতে না পারার ভয়ে ছিলেন স্টোকস

নিউজ ক্রিকেট ২৪ ডেস্ক »

 

ভেঙে পড়ছেন, বুঝতে পারছিলেন স্টোকস। মানসিক স্বাস্থ্যের দিকে বাড়তি মনোযোগ দিতে তাই গত বছরের জুলাইয়ে অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য বিরতি নেন তিনি। পাঁচ মাস পর অ্যাশেজ সিরিজ দিয়ে আবার ফেরেন ইংল্যান্ড দলে। গত এপ্রিলে তাকে দেওয়া হয় টেস্ট দলের নেতৃত্ব।

ব্যক্তিগত জীবনের নানা ঘটনার প্রভাব ছিল স্টোকসের বিরতিতে যাওয়ার পেছনে। গত ডিসেম্বরে বাবাকে হারানোর পর পুরোপুরিই ভেঙে পড়েন তিনি। ব্রেন ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা যান তার বাবা জেড স্টোকস।

এরপর বেশ কয়েকবার প্যানিক অ্যাটাকের শিকার হন স্টোকস। তখনই গুরুত্ব দেন তিনি মানসিক স্বাস্থ্যের। মঙ্গলবার বিবিসির সঙ্গে আলাপচারিতায় বিরতি নেওয়ার আগের সময়ের কথা তুলে ধরেন তিনি।

“এটা কেবল দুই সপ্তাহ কিংবা দুই মাসে তৈরি ঘটনা ছিল না। অনেক লম্বা সময় ধরে সমস্যাটা তৈরি হয়েছিল, সম্ভবত তিন কিংবা চার বছরের। বিষয়টি এমন যে, আমি যেন একটি কাচের বোতলে আমার আবেগগুলো জমা করছিলাম। শেষ পর্যন্ত সেটা পূর্ণ হয়ে বিস্ফোরিত হয়েছিল।”

অ্যামাজনের ডকুমেন্টারি ‘বেন স্টোকস: ফিনিক্স ফ্রম দা অ্যাশেজ’-এ মানসিক স্বাস্থ্যের বিষয়টি বিশদভাবে তুলে ধরেন স্টোকস। আগামী শুক্রবার এটি প্রকাশিত হবে।

সেখানে স্টোকসকে নিয়ে কথা বলেছেন সাবেক ও বর্তমান ইংলিশ ক্রিকেটাররা। গত মে মাসে প্রকাশিত ট্রেলারে অভিজ্ঞ পেসার স্টুয়ার্ট ব্রড বলেন, স্টোকস হয়তো আর কখনও ক্রিকেট নাও খেলতে পারতো।

তেমন শঙ্কা সত্যিই ছিল কিনা, এমন প্রশ্নের উত্তরে স্টোকস বলেন, “ওই সময়, হ্যাঁ। তখন আমি ওইরকম অবস্থায় ছিলাম।”

তবে ব্রডের সঙ্গে এসব নিয়ে কোনো কথা হয়নি বলে জানান ইংলিশ অলরাউন্ডার।

“বিরতিতে থাকার সময় এই বিষয়ে স্টুয়ার্টের (ব্রড) সঙ্গে কখনও কথা বলিনি। ওই সময় তার সঙ্গে অনেক কথা হতো, তবে সেগুলো ছিল সাধারণ আলোচনা, খুব গুরুত্বপূর্ণ কিছু না। আমি তাকে কখনও এটা বলিনি যে, আমি আবার খেলতে পারব না। কিন্তু সত্যি কথা বলতে, তার সেই অনুভূতি আমার চোখ খুলে দিয়েছিল…সবকিছু খুব খারাপ ছিল।”

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »