ওয়াটসনের চোখে যে আসরে রাজত্ব করবেন সাকিব

নিউজ ক্রিকেট ২৪ ডেস্ক »

 

সাকিব আল হাসানের ক্রিকেট মস্তিষ্ক নিয়ে কখনো কারো সন্দেহ ছিলো না। তাকে বলা হয় নেতৃত্বের নিউক্লিয়াস। অনেক জল্পনাকল্পনার পর টি-টোয়েন্টিতেও নেতৃত্ব হাতে পেয়েছেন দেশসেরা ক্রিকেটার। সাকিবের নেতৃত্বে বাংলাদেশ দল নতুন করে উজ্জীবিত হবে বলে মনে করেন সাবেক অস্ট্রেলিয়ান অলরাউন্ডার শেন ওয়াটসন।

একটা সময় একই সঙ্গে ক্রিকেট মাতিয়েছেন দু’জন। অলরাউন্ডারের র‍্যাঙ্কিংয়েও লড়াইটা হতো জমজমাট। এখন সেটা নেই। সাকিব খেলে গেলেও ব্যাট-প্যাড তুলে রেখেছেন ওয়াটসন। তবে সাকিবের মুগ্ধতা এখনো গ্রাস করে রেখেছে তাকে। সাবেক অস্ট্রেলিয়ান অলরাউন্ডারের বিশ্বাস, পারফরম্যান্স দিয়ে আগামী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ও এশিয়া কাপে দাপট দেখাবেন বাংলাদেশের অলরাউন্ডার।

সাকিব বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের সর্বকালের সেরা ক্রিকেটার। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তিন সংস্করণ মিলিয়ে সাকিব এখন পর্যন্ত খেলেছেন ৩৮৩ ম্যাচ। রান করেছেন ১৩ হাজারের বেশি, উইকেট নিয়েছেন ৬৩১টি। ব্যাটে বলে সেরা হলেও নেতৃত্ব নিয়ে সাকিবের লুকোচুরি চলছিলোই।

তবে বাংলাদেশ দল যখন টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে পায়ের নিচে জমিন শক্ত করতে লড়ছে, তখনই সামনে এসে দাঁড়ালেন এই অলরাউন্ডার। এশিয়া কাপ ও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য দায়িত্ব দেয়া হয়েছে তাকে। সাকিবকে আবার টি-টোয়েন্টির নেতৃত্বে ফেরানো সঠিক সিদ্ধান্ত কি-না, এমন প্রশ্নের জবাবে ওয়াটসন তুলে ধরেন নিজের ভাবনা।

সোমবার আইসিসি রিভিউয়ে ওয়াটসন বলেন, “অবশ্যই! সাকিবের মানের একজন নেতা পাওয়া, আমি মনে করি এটি তাদের (বাংলাদেশ দল) নতুন করে উজ্জীবিত করবে। সে অনেক অভিজ্ঞ। অনেক ম্যাচে সে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিয়েছে। অনেক ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগেও অধিনায়কত্ব করেছে, বিশেষ করে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে।”

“চাপের মুখে তার সিদ্ধান্তগুলো দলের জন্য অনেক মূল্যবান হবে। তার নিজেকে প্রমাণের একটা বিষয়ও আছে। আর বিশ্বমানের একজন ক্রিকেটারের যদি নিজেকে প্রমাণ করার থাকে এবং সফল হওয়ার দৃঢ়তা থাকে, তাহলে ওই ক্রিকেটার দাপুটে পারফরম্যান্স করে। সেই দৃষ্টিকোণ থেকে, সাকিব টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ও এশিয়া কাপে রাজত্ব না করলে আমি খুব অবাকই হব।” – ওয়াটসন যোগ করেন।

ওয়াটসন নিজে ছিলেন পেস বোলিং অলরাউন্ডার। ১৪ বছরের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের অভিজ্ঞতা থেকে তিনি ভালো করেই জানেন, শারীরিক ও মানসিকভাবে কতটা ধকল যায় একজন অলরাউন্ডারের ওপর দিয়ে। এটিই সাকিবের অর্জনগুলোকে আরও মূল্যবান করে তোলে বলে মনে করেন ওয়াটসন।

সাবেক এই অলরাউন্ডার আরও বলেন, “আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলার দৃষ্টিকোণ থেকে বলতে পারি, অলরাউন্ডারের কাজটা খুব চ্যালেঞ্জিং। যখন আপনি দিনের পর দিন খেলবেন তখন নিজের যত্ন নিতে হয় এবং শক্তি সংরক্ষণ করতে হয়। আর ব্যাটিংয়ের দৃষ্টিকোণ থেকে দেখলে দীর্ঘ সময় ধরে শারীরিক ও মানসিক শক্তি বজায় রাখতে হয়।”

বিশ্বজুড়ে ফ্র্যাঞ্চাইজি টি-টোয়েন্টি লিগগুলোর দাপট যেভাবে বাড়ছে, তাতে ভবিষ্যতে সাকিবের মতো সফলভাবে কাউকে তিন সংস্করণে খেলতে দেখা বিরলই হবে বলে মনে করেন ওয়াটসন।

ওয়াটসনের ভাষ্য, “তাকে তিন ফরম্যাটে খেলতে দেখা বিশেষ কিছু। যেভাবে খেলার পরিমাণ বাড়ছে, সেই সঙ্গে ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটও আছে, আগামীতে সাকিবের মতো সফলভাবে কাউকে তিন ফরম্যাটে খেলতে দেখা বিরল ব্যাপার হবে। ৩৫ বছর বয়সে প্রায় তিন ফরম্যাটেই ৩০ এর ওপরে ব্যাটিং গড় আর ৩০ এর নিচে বোলিং গড়ে ১৫ বছর ধরে বল করে যাওয়া বিশেষ কিছু।”

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »