এশিয়া কাপে বাংলাদেশের হেড কোচের ভূমিকায় কে?

নিউজ ক্রিকেট ২৪ ডেস্ক »

 

জিম্বাবুয়ে সিরিজ শেষে দেশে ফিরেই এশিয়া কাপের প্রস্তুতি শুরু করেছে বাংলাদেশ দল, প্রধান কোচ রাসেল দলের সাথে না থাকলেও জেমি সিডন্স এর অধীনেই চলছে প্রস্তুতি। বিসিবির সূত্র থেকে জানা যাচ্ছে টি২০ এর হেড কোচের ভূমিকায় এশিয়া কাপে নাও থাকতে পারেন আফ্রিকান কোচ রাসেল। তাই এশিয়া কাপে টাইগারদের হেড কোচ কে হচ্ছেন তা নিয়ে শুরু হয়েছে দোলাচল।

২০১৯ সালের শেষভাগ থেকে বাংলাদেশ দলের প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। এদিকে জেমি সিডন্স এখন দলের সাথে কাজ করছেন ব্যাটিং কোচ হিসেবে, যে হেভিওয়েট কোচকে হেড কোচ করার ভাবনাও ছিল। এবার তাদের সঙ্গী হয়ে এসেছেন ভারতীয় কোচ শ্রীধরন শ্রীরাম। পদবীর দিক থেকে শ্রীধরনকে ‘কোচ’ না বলে মেনটর বলা হলেও দুই কোচ ডমিঙ্গো ও সিডন্সের প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে উঠেছেন তিনি।

আধুনিক ক্রিকেটে ফরম্যাটভেদে ভিন্ন ভিন্ন কোচ ব্যবহারের ধারণাটি একদমই নতুন। ইংল্যান্ড লাল ও সাদা বলে পৃথক কোচ নিয়োগ দেওয়ার পর সম্প্রতি ভারত রোটেশন পলিসির আশ্রয় নিয়ে প্রধান কোচ হিসেবে পালাক্রমে ব্যবহার করছে রাহুল দ্রাবিড় ও ভিভিএস লক্ষণকে। আগামী দিনে, এমনকি এই এশিয়া কাপ থেকেই সে পথে হাঁটতে পারে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। যদিও বাংলাদেশ এই পথ বেছে নিচ্ছে পারফরম্যান্সের কারণে, টানা ক্রিকেটের ধকলের কারণে নয়। নতুন করে টি২০ ফরমেট সাজাতে চায় বিসিবি।

জিম্বাবুয়ে সফর শেষে দেশে ফেরা ক্রিকেটারদের নিয়ে এশিয়া কাপের অনুশীলন চালিয়ে যাচ্ছেন সিডন্স। অথচ এশিয়া কাপে তার যাওয়াই অনিশ্চিত। সিডন্সকে মূলত ডেভেলপমেন্ট বিভাগে কাজে লাগাতে চায় বোর্ড। এদিকে ডমিঙ্গোকে আপাতত টি-টোয়েন্টির ভাবনায় রাখা হচ্ছে না, তাকে শুধু টেস্ট ও ওয়ানডেতে কাজে লাগানোর ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে এশিয়া কাপের জন্য বাকি রইলেন শুধু শ্রীধরন, যাকে ‘কোচ’ হিসেবে মেনে নিতে আপত্তি বোর্ডের। এই ‘টেকনিক্যাল কনসালটেন্ট’ই এশিয়া কাপে হতে পারেন টাইগারদের গুরু।

পাপন জানান, ‘সিডন্সকে আমরা শুধু জাতীয় দলের জন্য আনিনি। ওকে মূলত এনেছিলাম পাইপলাইন মজবুত করার জন্য। তার নিজেরও ইচ্ছা ডেভেলপমেন্ট নিয়ে কাজ করার। দুর্ভাগ্যজনকভাবে এখন শুধু জাতীয় দলের সাথেই ঘুরছে। সিডন্স তাই শুধু আমাদের ডেভেলপমেন্ট নিয়ে কাজ করবে।’

তাই এমনও হতে পারে, এশিয়া কাপের জন্য বিজয়-মিরাজদের নিবিড় অনুশীলন করালেও সিডন্সই হয়ত এশিয়া কাপের বহরে থাকছেন না। এমনকি এশিয়া কাপের ভাবনায় নেই প্রধান কোচ ডমিঙ্গোও! তাকে আপাতত টি-টোয়েন্টির দায় থেকে মুক্তি দিতে চায় বোর্ড। বিসিবি সভাপতি বলেন, ‘সব উত্তর ২২ তারিখ জানা যাবে। আগে তো সবার সাথে বসতে হবে। ডমিঙ্গো ওয়ানডে ও টেস্টের জন্য থাকছে। টি-টোয়েন্টি সম্পূর্ণ ভিন্ন ব্যাপার। এ কারণেই সব আলাদা করতে চাচ্ছি। যদি পারি কোচিং স্টাফ (প্যানেল) আলাদা করে ফেলব।’

বিসিবি সভাপতি জানিয়েছেন সব কিছু ক্লিয়ার করা হবে ২২ তারিখে, এখন দেখার বিষয় বাংলাদেশের এশিয়া কাপের বহরে কার ভূমিকা কেমন হয়, তা দেখার জন্য অপেক্ষা করতে হবে ২২ তারিখ পর্যন্ত।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »