আফগানিস্তানের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরিয়ান হাশমতউল্লাহ শাহীদি-

নিউজ ক্রিকেট ২৪ ডেস্ক »

আন্তর্জাতিক টেস্ট ক্রিকেটে আফগানিস্তানের হয়ে প্রথম এবং একমাত্র ব্যাটসম্যান হিসাবে ডাবল সেঞ্চুরির রেকর্ড গড়েছেন হাশমতউল্লাহ শাহীদি। আফগানিস্তানের ক্রিকেট ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে হাসমতউল্লাহ শহীদীর নাম। বিশ্ব ক্রিকেটে নবাগত দলের হয়ে অভিষেক সেঞ্চুরিটাকে ডাবল সেঞ্চুরিতে রূপ দিয়েছেন তিনি। আফগানিস্তান ক্রিকেটর নতুন মাইলফলকের রূপকার তিনি।

আফগানিস্তান ক্রিকেট দলের মিডেল অর্ডারের ভরসার নাম হাশমতউল্লাহ শাহীদি। ওয়ানডে ক্রিকেটে নির্ভরতার প্রতীক তিনি। ৪ কিংবা ৫ নম্বর ব্যাটিং পজিশনে প্রতিরোধের দেয়াল গড়ে দেন শাহীদি। শক্ত হাতে দলের হাল ধরেন তিনি। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের মিঃ ডিপেন্ডেবল মুশফিকুর রহিম হলে আফগানিস্তানের মিঃ ডিপেন্ডেবল ব্যাটসম্যান শাহীদি। দলের ভারসা যোগানোর পাশাপাশি একজন পারফর্মার। খাদের কিনারা থেকে আফগান দলটাকে টেনে তোলেন লড়াকু পজিশনে। রঙিন পোশাকে নির্ভরতা যোগানো শাহীদি ক্রিকেটের অভিজাত সংস্করণ টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম আফগান হিসেবে হাঁকালেন ডাবল সেঞ্চুরি।

আবুধাবিতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্টে ৪ নম্বর ব্যাটসম্যান হিসাবে ব্যাটিংয়ে নামেন শাহীদি। তারপর খেলতে থাকেন প্রোপার টেস্ট ক্রিকেট। আসগর আফগান এর সাথে চতুর্থ উইকেটে গড়েন ৩০৭ রানের পার্টনারশিপ। একপ্রান্তে আসগর আফগান চালিয়ে খেললেও ধীরে ধীরে ইনিংস বিল্ডআপ করেন তিনি। এক পর্যায়ে তুলে নেন নিজের অভিষেক টেস্ট সেঞ্চুরি। তারপর আরও গভীর ব্যাটিংয়ে এগিয়ে চলেন দেড়শতকের দিকে। ততক্ষণে আফগানিস্তানের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসাবে দেড়শতক পূরন করেন আসগর আফগান। শাহীদি আগাতে থাকেন তার দীঢ়তা ভারা ইনিংস নিয়ে। জিম্বাবুয়ের অফ স্পিনার ওয়েসসলি মাধভেরের বলে ডিপ এক্সট্রা কাভারে খেলে সিঙ্গেলস নিয়ে ৩৮২ বলে পূরন করেন ক্যারিয়েরর প্রথম ১৫০*।

দেড়শতক এর পর কিছুটা চালিয়ে খেলেন শাহীদি। ১৭৪ রান নিয়ে চা বিরতিতে যান তিনি। তৃতীয় শেসনে ব্যাটিংয়ে নেমে কোন ঝুঁকি না নিয়ে দুঃসাহসিক নাবিকের মতো এগিয়ে চলেন ডাবল সেঞ্চুরির দিকে। এক পর্যায়ে নোঙর করেন কাঙ্খিত ঠিকানায় । রচনা করেন নতুন ইতিহাস। দেশের হয়ে প্রথম ডাবল সেঞ্চুরিয়ান এর তালিকায় নিজের নামটি সবার উপরে তুলে দেন শাহীদি।১৯৯ থেকে ডোনাল ত্রিপানোকে স্কোয়ার লেগে ঠেলে দিয়ে ডাবল সেঞ্চুরি উদযাপন করেন। ডাগআউট থেকে করতালিতে শাহীদিকে অভিবাদন জানান সতীর্থরা।

ডাবল সেঞ্চুরি করতে হাসমতউল্লাহ খেলেছেন ৪৪৩ বল। দুই দিন ধরে ৫৯০ মিনিট ব্যাটিং করে ২১ চার ও ১টি ছয়ে ইনিংসটি সাজান তিনি। এই ইনিংসটি কতদিন আফগানিস্তানের সেরা ইনিংস হয়ে থাকবে জানা নেই। তবে আফগানিস্তান ক্রিকেট ইতিহাসে এই ইনিংসটির গুরুত্ব থেকে যাবে যুগ থেকে যুগান্তরে।

 

নিউজক্রিকেট / রাসেল

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »