চাকরি হারালেন ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার প্রধান নির্বাহী

নিউজ ডেস্ক »

করোনা সামাল দিতে গিয়ে তালগোল পেঁচিয়ে চাকরিচ্যুত হতে যাচ্ছেন ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার প্রধান নির্বাহী। করোনার প্রকোপ অস্ট্রেলিয়াতে খুব একটা দেখা যায় নি যে কারণে ক্রিকেটের ক্ষতি তেমন হয়নি বললেই চলে।

গত গ্রীষ্মে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়ার মাত্র দুটি ওয়ানডে ম্যাচ ছাড়া আর কোন ম্যাচ মাঠে গড়াই নি তবে এতেই ভালো অর্থ উপার্জন করেছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। করোনার সময় ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কেভিন রবার্টসের কথাবার্তা চাল চলনে মনে হতো, অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট খুব খারাপ দিন পার করছে এবং একবারেই নাজুক অবস্থা। এমনকি আর্থিক ক্ষতি কমানোর জন্য বোর্ড কর্মকর্তাদের বেতন থেকে ২০ শতাংশ বেতনও তিনি কেটে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। কিন্তু এখন করোনা ভাইরাসের সময় তার নড়বড়ে ব্যবস্থাপনার জন্য চাকরি হারাতে বসেছেন রবার্টস। রবার্টসের জায়গায় একজন ভারপ্রাপ্ত হিসেবে প্রধান নির্বাহী নিয়োগ দেওয়া হবে।

বছরের শেষে ভারত দলের অস্ট্রেলিয়া সফরে টেস্ট ভেন্যুর তালিকা থেকে পার্থের স্টেডিয়ামকে বাদ দেওয়া হয়। যে কারণে ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গে এই বিষয়ে রবার্টস তোপের মুখে পড়েন যা পরবর্তিতে সমস্যার সৃষ্টি হয়। এছাড়া অস্ট্রেলিয়ার অন্যান্য রাজ্য দলের অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গেও তাঁর মতের ঠিক মিল হচ্ছিলো না। চলতি মাসের শুরুতে রবার্টস গণমাধ্যমে বলেছিলেন, করোনার কারণে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার ঘরোয়া ক্রিকেটের প্রায় ৫৫ মিলিয়ন ডলার ক্ষতি হয়েছে। তবে এই খবরের কতটুকু সত্যতা রয়েছে তা অস্ট্রেলীয় সংবাদমাধ্যম সন্দেহ প্রকাশ করছিলো। তারপর চলতি অক্টোবরে ঘরের মাঠে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আয়োজনের সম সম্ভাবনা নিয়েও বিরূপ মন্তব্য করে সবার আলোচনায় কেন্দ্রবিন্দুতে এসেছিলেন তিনি। সামনের আগস্ট থেকেই যেখানে অস্ট্রেলিয়ার মাঠে ক্রিকেট ফিরতে যাচ্ছে, আর সেখানে আর্থিক ক্ষতির এই সাজানো নাটকের অভিযোগ আসছে প্রধান নির্বাহীর বিরুদ্ধে তাইতো চাকরিচ্যুত হতে যাচ্ছেন ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার এ প্রধান নির্বাহী।

নিউজক্রিকেট/এসএস

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »